প্রধান মেনু

শরণখোলায় ক্লিনিকের মালিক দিচ্ছেন অ্যানেসথেসিয়া !প্রায় এক মাস হাসপাতালে দুই নারী

আলোরকোল ডেস্ক ।।  হারুন হাওলাদার উপজেলার খোন্তাকাটা এলাকার বাসিন্দা । পেশায় একজন কৃষক । মাঠে ধানের চারা রোপনের এই মুর্হুতে চরম অর্থ সংকটে ভুগছিলেন সে । তাছাড়া পরিবারের চার সদস্যের তিন বেলা খাবারের আয়োজন করাটাই তার  পক্ষে বর্তমানে বড় চ্যালেঞ্জ। হারুনের স্ত্রী মোসাঃ জুলিয়া বেগম (৩৫) সন্তান সম্ভাবনা থাকায় অনেকটা দিশেহারা হয়ে উঠেন সে । হঠাৎ করে গত ৭ সেপ্টেম্বর স্ত্রীর প্রসব বেদনা শুরু হলে তাৎÿনিক তাকে শরনখোলা উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে নিয়ে যায় হারুন । ওই সময় হাসপাতালের কর্তব্যরত নার্স শিখা রানী জুলিয়াকে দেখে ক্লিনিকে ভর্তির পরামর্শ দেন এবং বলেন , আপনার স্ত্রীর নরমাল ড়েলীভারী হবে না দ্রæত তাকে সিজার করাতেআরো পড়ুন

আমারদেশ

জনপ্রিয় সংবাদ

সম্পাদকের পছন্দ